মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

থাকছে না থ্রিজি, গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে ফোরজিতে: টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

প্রকাশনার সময়: ০৬ নভেম্বর ২০২২, ২১:১৫

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার রোববার (৬ নভেম্বর) দুপুরে জানিয়েছেন, আগামী বছর থেকে দেশে থ্রিজি প্রযুক্তি থাকছে না। এই প্রযুক্তির কোনো ডিভাইসও আমদানি বা রপ্তানি করা হবে না। ফোরজি প্রযুক্তির ওপর সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

রাজধানীর রমনায় বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) প্রধান কার্যালয়ে মোবাইল অপারেটরদের সেবার মান পরিমাপে অত্যাধুনিক কোয়ালিটি অফ সার্ভিস বেঞ্চমার্কিং সিস্টেমের উদ্বোধন শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, আমরা টুজিতে থাকব আরও কয়েক বছর। তার কারণ এই মুহূর্তে টুজি বন্ধ করে দেয়ার মতো অবস্থা আমাদের নেই। কিন্তু আমরা থ্রিজিতে থাকব না। আগামী জানুয়ারি থেকে থ্রিজি ডিভাইস আমদানি ও রপ্তানি দুটোই বন্ধ হয়ে যাবে।

বাংলাদেশ ইতোমধ্যে ফাইভজির যুগে প্রবেশ করেছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ২০২২ সালে ফাইভজির স্পেকট্রাম দিয়েছি। তবে সরকার ফোরজির ওপর সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। এ ক্ষেত্রে সুখবরটা হচ্ছে, আমাদের দেশের ৯৮ ভাগ অঞ্চল ইতোমধ্যে ফোরজি নেটওয়ার্কের আওতায় রয়েছে। ফোরজিকে শক্তিশালীভাবে পরিচালনা করতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এজন্য অপারেটরদের প্রচণ্ড চাপ দেয়া হচ্ছে।

সারা দেশে আউটডোর ও ইনডোরে সেবার মান পর্যবেক্ষণে জার্মানিভিত্তিক প্রতিষ্ঠান রোডে অ্যান্ড শোয়ার্জ থেকে উচ্চ প্রযুক্তির এই বেঞ্চমার্কিং যন্ত্রপাতির টেস্ট ও ট্রায়াল সম্পন্ন হয়েছে। বিটিআরসির জনবলকে এসব যন্ত্রপাতি ব্যবহারে কারিগরি প্রশিক্ষণও দেয়া হয়েছে।

এই সিস্টেমের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন স্থানে সেবার মান পরিমাপে চারটি ইউনিট ব্যবহার করা হবে। এর মধ্যে দুটি ভেহিক্যাল মাউন্টেড চেসিস বেইজড সিস্টেম এবং দুটি ব্যাকপ্যাক বেইজড সিস্টেম।

প্রতিটি চেসিস বেইজড সিস্টেমের মোট ২৪টি টার্মিনালের মাধ্যমে একসঙ্গে সব অপারেটরের টুজি ভয়েস, থ্রিজি ভয়েস, ফোরজি ভয়েস, থ্রিজি ডাটা, ফোরজি ডাটা এবং ওভার দ্য টপ অ্যাপস তথা ফেসবুক, গুগল ও হোয়াটসঅ্যাপের সেবার মান পরিমাপ করা যাবে।

চেসিস বেইজড সিস্টেমগুলো গাড়িতে বসানো হয়েছে এবং এসব গাড়ি দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘুরবে বলে জানিয়েছে বিটিআরসি। আর ব্যাকপ্যাক বেইজড সিস্টেমের মাধ্যমে আউটডোরের সঙ্গে বিভিন্ন ইনডোর স্থান যেমন শপিংমলের ভেতরে, বিভিন্ন ভবনের বেসমেন্ট, বাড়ি ও অফিসের ভেতরে সহজে মোবাইল সেবার মান যাচাই করা যাবে।

চারটি ইউনিটের প্রতিটির সঙ্গে সংযুক্ত স্ক্যানারের মাধ্যমে যে কোনো স্থানে নেটওয়ার্ক কাভারেজ যাচাই করা যাবে।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, এমএনপি চালু হওয়ায় নম্বর ঠিক রেখে অপারেটর বদলানোর সুযোগ রয়েছে। তবে কোনো অপারেটরেরই গ্রাহক সেবার মান সন্তোষজনক নয়।

২০১৮ সালে তরঙ্গ নিলাম হলেও ২০২২ সালে এসেও সেই তরঙ্গ পুরোপুরি রোলআউট করতে না পারায় মোবাইল অপারেটরদের ওপর ক্ষুব্ধ মন্ত্রী। এ বছরের মধ্যে সেই তরঙ্গ রোলআউট করার জন্য অপারেটরদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

নয়াশতাব্দী/জেডআই

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ