রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
ইডেন ছাত্রলীগ বিতর্ক

গণপদত্যাগের ভয়ে গণবহিষ্কার!

প্রকাশনার সময়: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫:০৮ | আপডেট: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫:০৯

ইডেন মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের একাংশের গণপদত্যাগের ভয়ে তাদের গণবহিষ্কার করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বহিষ্কৃত নেত্রীরা।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১ টায় ইডেন মহিলা কলেজের গেটে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন তারা।

‍‘বিনা তদন্তে বহিষ্কৃত, নেপথ্যে কারা’ শিরোনামে সংবাদ সম্মেলনে ইডেন মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সামিয়া আক্তার বৈশাখী বলেন, যেহেতু বার বার সভাপতি রিভাকে মারধরের কথা আসছে তাহলে রোকেয়া হল ছাত্রলীগের নেত্রী ফাল্গুনী দাস তন্বীকে মারধরের অভিযোগে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বেনজির হোসেন নিশিকে কেন বহিষ্কার করা হলো না? যে মামলা এখনো চলমান এবং সেই মামলায় ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি বেনজির নিশিকে তদন্ত কমিটির দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। একজন ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি কীভাবে তদন্ত করে?

লিখিত বক্তব্যে ইডেন মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের সহ সভাপতি সুষ্মিতা বাড়ৈই প্রশ্ন তুলে বলেন, সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ আর হাজার হাজার প্রমাণ, চাঁদাবাজির ভিডিও এবং অধ্যক্ষ ম্যামকে নিয়ে কটূক্তি করার পরও কেন তাদের বহিষ্কার করা হলো না?

এ নেত্রী আরো প্রশ্ন তুলেন বলেন, ২ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ১ জন পদত্যাগ করার পরেও কেন নতুন করে কমিটি গঠন না করে কোন তদন্তের ভিত্তিতে আমাদের স্থায়ী বহিষ্কার করা হলো?

তারা বলেন, সকলের ভাষ্যমতে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ। তাহলে এই দুই গ্রুপের সংঘর্ষের পরেও কেন একটা গ্রুপের নেত্রীদের গণহারে বহিষ্কার করা হলো? এর পেছনে কারা আছে তার সুষ্ঠু জবাব দিতে হবে।

তারা আরো বলেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ সভাপতি তিলোত্তমা শিকদারের ফেসবুক পেজ থেকে একরকম প্রেস আবার বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যের পেজ থেকে আপলোড করা প্রেস বিজ্ঞপ্তি অন্যরকম। এই ভিন্নতার রহস্য উন্মোচন করতে হবে।

তারা বলেন, বিভিন্ন ইউনিটে সমস্যা হলে তারা তদন্ত করে এবং কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়। আমাদের ক্ষেত্রে কেন সেই নিয়ম মানা হলো না? তাহলে কী কেন্দ্রীয় কমিটি তাদের এই অন্যায়ের সাথে সহমত করছে? আমাদের বিরুদ্ধের বহিষ্কারাদেশ অনতিবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এদিকে বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার না করলে আমরণ অনশনের হুমকি দিয়ে সংবাদ সম্মেলন শেষে ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে যান বহিষ্কৃত ১২ নেত্রী। কিন্তু সেখানে গিয়ে তারা ঘোষিত কর্মসূচি পালন না করেই ফিরে আসেন।

দুপুর সাড়ে ১২টায় অনশনের জন্য আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কার্যালয়ে যান ১২ নেত্রী। এসময় ফটকে নিরাপত্তা রক্ষীদের সঙ্গে তাদের কয়েক দফা ধাক্কাধাক্কি হয়। পরে তারা কার্যালয়ের ভেতরে প্রবেশ করেন। সেখানে দেড় ঘণ্টা অবস্থানের পর বের হয়ে আসেন তারা।

অনশনের বিষয়ে ইডেন মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সহ-সভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, আমরা অনশন বাতিল করেছি। এখন আমাদের নতুন কোনো কর্মসূচি নেই।

নয়াশতাব্দী/জেডআই

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ