মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩, ১৭ মাঘ ১৪৩০

জাবি শিক্ষক সমিতি’র নির্বাচন বুধবার

প্রকাশনার সময়: ২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ২৩:১২ | আপডেট: ২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ২৩:১৩

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) শিক্ষক সমিতির নির্বাহী পরিষদের নির্বাচন আগামীকাল অনুষ্ঠিত হবে। এবারের নির্বাচনে পৃথক পৃথক প্যানেল ঘোষণা করেছে আওয়ামীপন্থী বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ ও বিএনপিপন্থী জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম।

বুধবার (২৫ জানুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের ‍‍`শিক্ষক অফিসার্স ক্লাব‍‍`এ সকাল ৯টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে বেলা দেড়টা পর্যন্ত চলবে। এরপর দুপুর আড়াইটার দিকে ভোট গণনা শেষে সন্ধ্যা নাগাদ নির্বাচিত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামীপন্থি শিক্ষকদের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’ থেকে সভাপতি পদে বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত ও পদার্থ অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. ফরিদ আহমদ ও সম্পাদক পদে ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজির (আইআইটি) অধ্যাপক ড. এম শামীম কায়সার নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন।

বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদের সভাপতি পদপ্রার্থী অধ্যাপক ড. ফরিদ আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ নির্বাচনে জয়ী হলে কখনোই প্রশাসনের লেজুড়বৃত্তি করবে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের মঙ্গলে যদি প্রশাসনের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়া লাগে তাও আমরা করবো। আমাদের লক্ষ্য থাকবে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বার্থ, শিক্ষকদের স্বার্থ ও শিক্ষার্থীদের স্বার্থ নিশ্চিত করা।

সকল পর্যায়ে নির্বাচিত প্রতিনিধির মাধ্যমে কার্যক্রম পরিচালনা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখা, শিক্ষাছুটিতে থাকাকালীন শিক্ষকগণের সব সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা, অস্থায়ী শিক্ষকগণের স্থায়ীকরণের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা, আবেদনের সময় থেকে নিকটবর্তী সিন্ডিকেটের সময়ের মধ্যে আপগ্রেডিং বোর্ড সম্পন্ন করা, শিক্ষকদের অফিস কক্ষের স্বল্পতা দূর করা, শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবীমা চালু, ক্যাম্পাসে মানসম্মত ডে কেয়ার চালু, শিক্ষার্থীদের জন্য ডিনস অ্যাওয়ার্ডসহ শিক্ষাবৃত্তির সংখ্যা ও পরিমাণ বর্ধিত করাসহ মোট ২২টি ইশতেহার ঘোষণা করে বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ।

অপরদিকে বিএনপিপন্থি শিক্ষকদের দুটি সংগঠন ‘জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরামে‍‍`র ব্যানারে একই প্যানেলে নির্বাচনে লড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই প্যানেল থেকে সভাপতি পদে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের অধ্যাপক মো. সোহেল রানা ও সম্পাদক পদে গণিত বিভাগের অধ্যাপক আমিনুর রহমান খান প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরামের সদস্য সচিব ও নির্বাহী সদস্য পদপ্রার্থী অধ্যাপক শামসুল আলম বলেন, আমাদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ মূলত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন যৌক্তিক দাবি-দাওয়া আদায়ে কথা বলার জন্য। বিশেষত গণতান্ত্রিক পর্ষদগুলোতে দীর্ঘদিন ধরে নির্বাচন হচ্ছে না। সেশনজটসহ বিভিন্ন সমস্যার কারণে শিক্ষার্থীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ অংশীজন হিসেবে এগুলো আমাদের দায়িত্ব। আমরা আশা করছি নির্বাচনে আমাদের পূর্ণ প্যানেলে জয় হবে।

শিক্ষা, গবেষণা, প্রশাসনিক কার্যক্রমে গতিশীলতা আনয়ন ও উন্নয়ন কর্মকান্ডে স্বচ্ছতা ফিরিয়ে আনা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল স্তরে গণতান্ত্রিক সংস্কৃতি পুনঃরুদ্ধারে অঙ্গীকারবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে জাতীয়তাবাদ শিক্ষক ফোরাম।

প্রসঙ্গত, গত বুধবার (৪ জানুয়ারি) নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশনার এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. অনিরুদ্ধ কাহালি। শিক্ষক সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদের সভাপতি, সহ-সভাপতি, কোষাধ্যক্ষ, সম্পাদক ও যুগ্ম সম্পাদক পদে একজন করে এবং নির্বাহী পরিষদের সদস্য পদে ১০ জনসহ মোট ১৫টি পদে এবারের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

নয়াশতাব্দী/এমএস

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ