ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

চিকিৎসকের বাসায় প্রেমিকার আত্মহত্যা

প্রকাশনার সময়: ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২২:১৯
ছবি: অভিযুক্ত মো. ফিরোজ আলম

আশুলিয়ায় চিকিৎসক প্রেমিকের বাসায় গিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী। এ ব্যাপারে চিকিৎসক প্রেমিকের বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে ভুক্তভোগীর পরিবার।

বুধবার (৫ অক্টোবর) দুপুরে আশুলিয়ার ডেন্ডাবর এলাকায় প্রেমিকের ফ্ল্যাটে গিয়ে আত্মহত্যা করে ওই শিক্ষার্থী। এ ঘটনায় প্রেমিককে আটক করে থানায় এনেছে আশুলিয়া থানা পুলিশ। চিকিৎসক অন্যত্র বিয়ে করায় ওই তরুণী তার বাসায় গলায় ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে জানা গেছে।

আটককৃত প্রেমিক ঢাকার দোহার থানার রাধানগর গ্রামের মো. ওমর আলীর ছেলে মো. ফিরোজ আলম (৩১)। তিনি পেশায় একজন চিকিৎসক, স্থানীয় একটি পোশাক কারখানায় মেডিকেল অফিসার হিসেবে কাজ করতেন। গত ৬ মাস আগে আরেক চিকিৎসককে বিয়ে করেন তিনি। আত্মহত্যাকারী নুসরাত মিম ওরফে কুলসুম (২৬) গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজী বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ থানার দেহেরগতি গ্রামের মৃত শাহজাহান তালুকদারের মেয়ে। পড়াশোনার পাশাপাশি সাভারের একটি হাসপাতালে খন্ডকালীন চাকরি করতেন তিনি।

পুলিশ জানায়, প্রেমিক বিয়ে করেছে জানতে পেরে তার ফ্ল্যাটে গিয়ে হাজির হয় প্রেমিকা মীম। মীমকে ঘরে রেখেই বারান্দায় স্ত্রীর সাথে মোবাইলে কথা বলতে যান ফিরোজ। পরে বারান্দার দরজা ঘরের ভেতর থেকে আটকে নিজের ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে ফ্যানের সাথে ঝুলে পড়েন মীম। বারান্দা থেকে ফিরোজ এ ঘটনা দেখতে থাকেন। সে চিৎকার চেচামেচি করলেও মীম থামেনি। পরে ফোনে পুলিশকে জানালে পুলিশ এসে দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে এবং চিকিৎসককে বারান্দা থেকে বের করে।

আশুলিয়া থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। চিকিৎসককে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। নিহতের ভাই বাদী হয়ে আত্মহত্যার প্ররোচণার দায়ে ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করবেন। মামলার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

নয়াশতাব্দী/এমএস

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ