ঢাকা, সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪
সদ্যসমাপ্ত এসএসসি’র শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে কাউখালীর ইউএনও

‘তোমরা মা-বাবার নির্ভরতার প্রতীক হয়ে ওঠো’

প্রকাশনার সময়: ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৯:১৯ | আপডেট: ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৯:৪৮

সদ্য সমাপ্ত এসএসসির শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা: খালেদা খাতুন রেখা বলেছেন, মানুষকে মানুষের দৃষ্টিতে দেখতে শিখ। মা বাবার প্রয়োজনীয় কাজে অবশ্যই তোমাকে নিয়ম করে পাশে থাকতে হবে। তোমরা মা বাবার নির্ভরতার প্রতীক হয়ে ওঠো এই প্রার্থনা তোমাদের জন্য।

বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সদ্যসমাপ্ত এসএসসির শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে লিখিত এক শুভেচ্ছা বার্তায় এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, আমার ইচ্ছা ছিল এসএসসি এবং সমমান পরীক্ষার শেষ দিকে শিক্ষার্থাদের হাতে একটা চিঠি এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী তুলে দিব। যেহেতু আজ আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শুভ জন্মদিন। তাই এই দিনটিকেই বেছে নিলাম। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত দেশ প্রেমিক প্রজন্ম গঠনই এ ক্ষুদ্র উদ্যোগের একমাত্র উদ্দেশ্য।

লিখিত বার্তায় ইউএনও বলেন, প্রিয় শিক্ষার্থী, শুভাশিষ নিও। আজ হতে চলমান এসএসসি/সমমান পরীক্ষা-২০২২ শেষ হতে যাচ্ছে। এসএসসি পরীক্ষা পরবর্তি যে সময়টুকু তুমি পাচ্ছ তা তোমার জীবনে অন্যরকম এক কাঙ্খিত পরিবর্তন বয়ে আনুক সে প্রত্যাশা সব সময়ের। আমরা চাই তুমি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলার সোনার মানুষরূপে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত কর। প্রিয় মাতৃভূমির প্রতি তোমার দায়িত্ব ও কর্তব্য অনেক। ছাত্রজীবনের দীর্ঘ পথচলার এ সময় তোমাকে শিখতে হবে আগামী বাংলাদেশের সঠিক নেতৃত্ব। তোমাকে জানতে হবে সত্য মিথ্যার আসল পার্থক্য। তোমাকে আরও জানতে হবে শত বাধা বিপত্তির মাঝে নিজেকে কিভাবে টিকিয়ে রাখতে হবে সময়ের প্রয়োজনে। কিভাবে একটি শান্তি সৌহাদ্যপূর্ণ পরিবার, সমাজ এবং রাষ্ট্র বিনির্মানে অবদান রাখতে হয়। তাও শিখতে হবে। তোমার এ বয়সে যদি জীবনের জন্য অতি গুরুত্বপূর্ণ কোন কাজ যা তোমার শেখা হয়ে ওঠেনি তাও তুমি শিখে নিতে পার। অবসর সময়টি যেন সত্যিই অবসরে না কাটে বরং এ সময়ই তোমার জীবনে পরবর্তি জীবনের জন্য আশীর্বাদ বয়ে আনতে পারে সেভাবে কাটাতে পার।

তিনি বলেন, তুমিই হতে পার আগামী দিনের জনবান্ধব নেতা, বিশ্বের শ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানী, মানবদরদী ডাক্তার, মানুষ গড়ার অনুকরণীয় কারিগর শিক্ষক, নিবেদিত প্রাণ প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী অথবা অন্য কোন পেশার আদর্শবান একজন মানুষ। তুমি যেন মানুষকে মানুষের দৃষ্টিতে দেখতে শিখ। ধর্ম যেন তোমাকে কোন গন্ডির মধ্যে আবদ্ধ করে না রাখে সে শিক্ষাও তোমাকে নিতে হবে। তুমি এ সময়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা যেমন প্রতিদিনের বিশ্ব পরিস্থিতি জানতে পার নিয়মিত পত্রিকা (বাংলা ও ইংরেজি) পাঠের মাধ্যমে। বিশ্বের সাথে নিজেকে তাল মিলিয়ে চলতে শিখতে পার জাতিসংঘের অফিসিয়াল কোন ভাষা (ইংরেজি, ফারসি, আরবি) যা তোমাকে বিশ্ব নাগরিকে পরিণত করতে সহায়ক হবে। প্রতিটি দিন রাতকে কয়েকটা অংশে ভাগ করে তুমি এ কাজগুলো করতে পার। শরীরিক ব্যায়াম চর্চাকে (নিয়মিত হাঁটা, সাতার কাটা) এ সময়ে অভ্যাসে পরিণত করতে পার। সহপাঠী কিংবা পাড়া প্রতিবেশীদের সাথে প্রতিদিন বিকালে তুমি তোমার পছন্দের খেলায় মেতে উঠতে পার।

তিমি আরও বলেন, ধর্মীয় প্রয়োজনীয় অনুশাসন জেনে নিতে পার যা তোমাকে পরবর্তি জীবন চলায় সহযোগিতা করতে পার। মা বাবার প্রয়োজনীয় কাজে অবশ্যই তোমাকে নিয়ম করে পাশে থাকতে হবে। মা বাবার কাছে তুমি নির্ভরতার এক প্রতীক হয়ে ওঠো প্রার্থনা তোমার জন্য। এ সময়ে ছোট বড় ভাই বোন থাকলে তাদের সাথেও তুমি আনন্দপূর্ণ সময় অতিবাহিত করতে পার। বাড়িতে বৃদ্ধ দাদা-দাদী, নানা-নানী বা অন্য কোন আত্মীয়-স্বজন থাকলে তাদের যত্ন নিতে পার যা তোমার পরবর্তি জীবনে পাথেয় হিসাবে কাজ করবে। ধুমপান, মাদক সেবন ও প্রযুক্তির অতিরিক্ত ব্যবহার যেন তোমার মূল্যবান জীবনকে কোনভাবেই ক্ষতিগ্রস্থ করতে না পারে সেদিকে

ইউএনও বলেন, অবশ্যই খেয়াল করতে হবে। তুমি জানো সময়ের ধারায় এগিয়ে চলছে সভ্যতা। সাথে বদলে যাচ্ছে জীবন ব্যবস্থা। যার ফলশ্রুতিতে মানুষ একদিকে যেমন আয়ত্ব করছে বা অভ্যস্ত হচ্ছে নতুন অনেক কিছুর সাথে। তেমনি আধুনিকতার ভাঁজে চাপা পড়ে যাচ্ছে অনেক সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য। প্রয়োজনীয় সংস্কৃতি চর্চা তোমার অভ্যাসে পরিণত করতে হবে অবশ্যই।

মোছা: খালেদা খাতুন রেখা বলেন, উপজেলা প্রশাসন তোমাদের এ সময়টাকে ফলপ্রসূ করতে পাবলিক লাইব্রেরীতে নিয়মিত বাংলা ইংরেজি পত্রিকাসহ বিভিন্ন ধরনের বই পাঠের ব্যবস্থা করেছে। যেখানে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ হতে শুরু করে প্রয়োজনীয় সকল ধরনের পাঠ্য পুস্তকের সমাহার রয়েছে। পাশাপাশি দক্ষ কয়েকজন ইংরেজি শিক্ষক দ্বারা তোমরা চাইলে ইংরেজি ভাষা শেখানোর ব্যবস্থা করা যাবে। উপজেলা পরিষদ চত্বরে খেলাধুলা করার জন্য বিশাল মাঠ রয়েছে। প্রয়োজনে তোমাদেরকে ক্রীড়া সামগ্রী দিয়ে উৎসাহ প্রদান করা হবে। একইভাবে এই অবসর সময়ে পাবলিক লাইব্রেরীতে নিয়মিত পড়াশোনা করা তিন জনকে পরীক্ষার রেজাল্টের পরে বিশেষ সম্মাননা দেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। আজ তোমাদের প্রত্যেকের হাতে একটি করে “বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী” বই তুলে দেওয়া হচ্ছে। স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতার এ আত্মজীবনী পাঠের মাধ্যমে তুমি একজন দেশপ্রমিক মানুষ হয়ে গড়ে ওঠতে পার তাই আমাদের চাওয়া। পরিশেষে জাতীর পিতার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার ভিশন-২০৪১ অনুযায়ী সালের উন্নত বাংলাদেশের উন্নত নাগরিক হিসেবে প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশের উন্নয়নে তুমিই হবে গর্বিত অনুজ সেই প্রত্যাশায়।

নয়াশতাব্দী/এমএস

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ