ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

ফেঁসে যাচ্ছেন রহিমা ও তার সন্তানরা!

প্রকাশনার সময়: ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২৩:৫৯

খুলনায় তদন্তে আলোচিত রহিমা বেগমকে অপহরণের কোনো প্রমাণ পায়নি পিবিআই। বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত, যাচাই-বাছাই করে এবং ওই নারী ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে তাঁকে অপহরণের প্রমাণ পায়নি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

জমি সংক্রান্ত বিরোধে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে অপহরণের নাটক সাজান তারা। এতে ফেঁসে যাচ্ছেন রহিমা বেগম ও তার সন্তানরা। রহিমার মেয়ে মরিয়ম এখন তার সুর পাল্টে বলছেন, মা অথবা তার ভুল-অন্যায় থাকলে সংশোধন করবেন। কথিত অপহরণ মামলায় সহসা মুক্তি মিলছে না ওই আটক ৬ জনের।

নিখোঁজের নাটক ও মিথ্যা তথ্য দিয়ে মামলা করায় ফেঁসে যাচ্ছেন রহিমা ও তাঁর সন্তানরা। আদালতে মামলাটি মিথ্যা প্রমাণ হলে তাঁদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সংবাদ সম্মেলন করে এ মামলায় আটক পাঁচজনের মুক্তি এবং বাদীপক্ষের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগীদের স্বজন। একই সাথে তাঁরা রহিমাদের বিরুদ্ধে মামলা করার ঘোষণাও দিয়েছেন।

পিবিআই খুলনার পুলিশ সুপার সৈয়দ মুশফিকুর রহমান জানান, রহিমার বক্তব্য এবং আদালতে যে জবানবন্দি দিয়েছেন সেসব বিশ্লেষণ ও যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে তাঁকে অপহরণের বিষয়টি আমাদের কাছে ভুয়া প্রমাণ হয়েছে। এর পক্ষে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তবে তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত বিস্তারিত বলা এবং চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে আসা যাচ্ছে না। রহিমাকে উদ্ধারের পর এখন সুর পাল্টেছেন তার মেয়ে মরিয়ম মান্নান।

তিনি বলছেন, তার মা অথবা নিজের ভুল থাকলে সংশোধন করবেন।

এদিকে রহিমা বেগমকে কথিত অপহরণ মামলায় এক মাস জেল খাটছেন ৬ জন। মেলেনি জামিন, সহসা মুক্তি মিলছে না তাদের।

মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) পরিবারের সদস্যরা সংবাদ সম্মেলন করে তাদের মুক্তি, রহিমার শাস্তি দাবি এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের ঘোষণা দিয়েছেন।

২৭ আগস্ট খুলনার মহেশ্বরপাশা এলাকার বাড়ি থেকে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হন রহিমা বেগম। তাকে অপহরণের অভিযোগ তুলে পরদিন মামলা করেন মেয়ে আদুরি আক্তার।

নয়াশতাব্দী/এফআই

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ