ঢাকা, সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

গাজীপুরে বেলুন বিস্ফোরণ : ৩ সরবরাহকারীর নামে পুলিশের মামলা

প্রকাশনার সময়: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২১:৫১

গাজীপুর মহানগর পুলিশের চতুর্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে বেলুন বিস্ফোরণে কলকাতার কমেডি শো মিরাক্কেলের কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনিসহ পাঁচজন দগ্ধ ও আহত হওয়ার ঘটনায় মামলা হয়েছে।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর রাত সোয়া ৯টায় গাজীপুর মহানগর পুলিশের সদর থানায় মামলাটি রুজু করা হয়েছে। মামলার আসামিরা হলেন- বাবুল, মানিক ও কিবরিয়া। তারা সকলেই ওই অনুষ্ঠানে বেলুন সরবরাহ করেছিল।

গাজীপুর মহানগর পুলিশের সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম জানান, থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) মোসাব্বির হোসেন বাদী হয়ে এ মামলাটি দায়ের করেন। মামলাটি ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনসহ কয়েকটি ধারায় রুজু করা হয়েছে। মামলায় পরস্পর যোগসাজশে উদ্দেশ্যে প্রণোদিতভাবে ক্ষতিকারক দাহ্য পদার্থ/গ্যাস সাপ্লাই করে জননিরাপত্তা বিপন্ন ও সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের গুরুতর আহত করার অপরাধ সংগঠনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, গাজীপুর মহানগর পুলিশের চতুর্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গাজীপুর জেলা পুলিশ লাইন্স আয়োজিত অনুষ্ঠানে বাদীর ডিউটি ছিল। ঘটনার দিন বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটের সময় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে আগত সম্মানিত অতিথিবৃন্দ উদ্বোধনী মঞ্চে অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী ঘোষণার পর মূল মঞ্চে চলে যায়। পরে বেলা অনুমান ৫টা ৪৫ মিনিটের সময় বেলুনগুলো আকাশের দিকে না ওড়ে পুলিশ লাইন্সের ভেতর অবস্থিত ইন সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টার সংলগ্ন পাকা রাস্তার উপরে পড়ে। এ সময় আবু হেনা রনিসহ সেখানে দায়িত্ব পালনরত পুলিশ কনস্টেবল জিল্লুর রহমান, মোশাররফ হোসেন, রুবেল মিয়া আহত হয়।

তাৎক্ষণিকভাবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত অন্যান্য পুলিশের সহায়তায় অ্যাম্বুলেন্সযোগে চিকিৎসার জন্য তাদের গাজীপুর তাজউদ্দীন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ উন্নত চিকিৎসার জন্য আবু হেনা রনি ও কনস্টেবল জিল্লুর রহমানকে ঢাকায় শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে প্রেরণ করেন। তারা বর্তমানে সেখানে চিকিৎসাধীন আছেন। অপর কনস্টেবল মোশাররফ হোসেন এবং রুবেল মিয়া প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে হাসপাতাল থেকে বাড়ি চলে যায়।

এজাহারে আরও বলা হয়, প্রাথমিকভাবে বিষয়টি তদন্ত করিয়া জানা যায়, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে বেলুন সাপ্লাইয়ের দায়িত্বে ছিল আসামি বাবুল, মানিক ও কিবরিয়া। তাদের সকলের ঠিকানা অজ্ঞাত। বর্ণিত আসামিরা পরস্পর যোগসাজসে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে জন নিরাপত্তা বিপন্ন হয় এরকম হীন উদ্দেশ্যে সংরক্ষিত স্থানে বেলুনের মধ্যে কৌশলে ক্ষতিকারক দাহ্য পদার্থ/ গ্যাস ব্যবহার করে সাপ্লাই দেওয়ার কারণে সেই বেলুনগুলো বিস্ফোরিত হয়। যার প্রেক্ষিতে আবু হেনা রনিসহ দায়িত্বরত সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারী (পুলিশ কনস্টেবল) গুরুতর আহত হয়।

মামলা দায়েরের পর মামলাটি গাজীপুর মেট্রো সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক মহিউদ্দিন আহমেদকে তদন্তের জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ