রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

ফিরে দেখা ২০২১ : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৫৯ খুন

প্রকাশনার সময়: ৩১ ডিসেম্বর ২০২১, ২২:২৬

২০২১ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মোট ৫৯টি খুন হয়। ছোট বড় মিলিয়ে শতাধিক সংঘর্ষ হয়। এসব খুন ও সংঘর্ষের ঘটনায় জেলার বিভিন্ন থানায় ৩৭৮টি মামলা হয়। এছাড়া হেফাজতের তাণ্ডবসহ নানা আলোচিত ঘটনার মধ্যে দিয়েই ২০২১ সাল অতিবাহিত করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসী। এই ঘটনা সারা দেশে মানুষের মধ্যে আলোচনার খোরাক হয়। এতে ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসীকে বিব্রতও হতে হয়। ২০২১ সালের আলোচিত ঘটনার মধ্যে ছিলো হেফাজতের তাণ্ডব, নৌকা ডুবিতে ২৩ জনের মৃত্যুর ঘটনা, ৭০ বছর পর হারানো ছেলেকে ফিরে পাওয়া, পরকীয়ার অভিযোগ তুলে বিধবার মাথা ন্যাড়া, বিয়েতে টক দই পরিবেশনকে কেন্দ্র করে বরপক্ষের হাতে কনের পিতা খুন।

মহান স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যাপক তাণ্ডব চালায় হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীরা। তাণ্ডবকারীরা বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর তিনটি ম্যুরাল, শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বর, রেলওয়ে স্টেশন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদ কার্যালয়, পৌরসভা কার্যালয়, পুলিশ সুপারের কার্যালয়, সিভিল সার্জন অফিস, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়, সার্কিট হাউজ, জেলা শিল্পকলা একাডেমী, আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গন, আলাউদ্দিন খাঁ পৌর মিলনায়তন, মাতৃ সদন, এসিল্যান্ডের কার্যালয়, সরকারি গণগ্রন্থাগার, জেলা ক্রীড়া সংস্থা, জেলা মৎস্য অফিস, খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানা ভবন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের কার্যালয়, আশুগঞ্জ টোলপ্লাজা ভাংচুরসহ অর্ধশতাধিক সরকারি ও বেসরকারি স্থাপনায় হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগ করে। তিন দিনের হামলায় হেফাজতের ১৫ জন নিহত ও ৮০ পুলিশসহ প্রায় পাঁচ শতাধিক মানুষ আহত হন। এতে প্রায় শত কোটি টাকার বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

তাণ্ডবের ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন থানায় পুলিশ ও ক্ষতিগ্রস্তদের পক্ষ থেকে ৫৬টি মামলা করা হয়। এসব মামলায় হেফাজতের প্রায় ৩৮ হাজার নেতাকর্মী ও দুর্বৃত্তকে আসামি করা হয়। এসব মামলার ৬৬৫ জন আসামিকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে অনেকেই পরে আদালত থেকে পর্যায়ক্রমে জামিন পেয়ে কারামুক্ত হন। তাণ্ডবের ঘটনার প্রায় ৮ মাস পর ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশন সংস্কার শেষে গত ১৩ নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে পূর্ব নির্ধারিত সকল ট্রেনের যাত্রা বিরতি শুরু হয়। এছাড়া বঙ্গবন্ধুর তিনটি ম্যুরাল, দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের কার্যালয় ও বাস ভবন, আশুগঞ্জ টোলপ্লাজা মেরামত কাজ শেষ করা হয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদ, পৌরসভা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব, এসিল্যান্ডের কার্যালয়, পুলিশ সুপারের কার্যালয়, সিভিল সার্জন অফিস, খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানা ভবন এর মেরামত কাজ বর্তমানে চলমান আছে।

এছাড়াও মাকে মারধোর করায় ছেলের হাতে বাবা খুর্ন, ট্রেন-অটোরিকসার সংঘর্ষে পিতা-পুত্রসহ তিনজন নিহত, নির্বাচনী সহিংসতায় যুবক খুন, খুনের মামলা আপোষ না করায় চেয়ারম্যানপুত্রসহ দু’জন খুন এর ঘটনা ছিলো অন্যতম।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি: বছর জুড়েই করোনাভাইরাসের কারণে আতঙ্কিত সময় পার করে জেলাবাসী। করোনাভাইরাসে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মোট ১৮০জন মারা যান।

৫৯টি খুন: জেলা পুলিশের তথ্য অনুযায়ী ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ৫৯টি খুন হয়। এছাড়া ছোট বড় মিলিয়ে শতাধিক সংঘর্ষ হয়। এসব খুন ও সংঘর্ষের ঘটনায় জেলার বিভিন্ন থানায় ৩৭৮টি মামলা হয়।

পুলিশ দম্পতির ছবি ভাইরাল: ১৮ মার্চ সন্ধ্যায় ফেসবুকে পোষ্ট করা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশ দম্পতির একটি ছবি ভাইরাল হয়। পুলিশের এস. আই উজ্জ্বল ঘোষ জিতু ও তার স্ত্রী সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) উর্মী দেব তাদের একটি ছবি ফেসবুকে পোষ্ট করেন। ছবিটি ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে ভাইরাল হয়। স্ত্রী পদমর্যাদা স্বামীর উপরে হলেও দাম্পত্য জীবনে তারা বেশ সুখী। পরষ্পরের প্রতি ভালোবাসা ও শ্রদ্ধাবোধের বিষয়টিই এতে প্রকাশ পায়। পরকীয়ার অপবাদ দিয়ে বিধবার মাথা ন্যাড়া: সরাইল উপজেলার পানিশ্বর ইউনিয়নের বেড়তলা গ্রামে গত ২২ জুলাই পরকীয়ার অপবাদ দিয়ে ৪৫ বছর বয়সী এক বিধবাকে মাথা ন্যাড়া করা হয়। বিষয়টি ২৬ আগস্ট ফেসবুকে ভাইরাল হলে পুলিশ তিন মহিলাকে গ্রেফতার করে।

নৌকা ডুবিতে ২৩ জনের মৃত্যু: ২৭ আগষ্ট সন্ধ্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার লইস্কার বিলে নৌকা ডুবিতে মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীসহ ২৩ জনের সলিল সমাধি হয়।

পিতা-পুত্রসহ তিনজন নিহত: গত ১২ সেপ্টেম্বর ভোরে আশুগঞ্জ উপজেলার তালশহর রেলওয়ে লেভেল ক্রসিংয়ে চলন্ত ট্রেনের সাথে সিএনজিচালিত অটোরিকসার সংঘর্ষে পিতা-পুত্রসহ একই পরিবারের তিনজন নিহত হন। নিহতরা হলেন, সদর উপজেলার নাটাই উত্তর ইউনিয়নের রাজঘর গ্রামের মো: সাদেক মিয়া-(৬৮), তার পুত্র রুবেল মিয়া-(৩৩) ও পাবেল মিয়া-(২৩)।

৭০ বছর পর হারানো ছেলেকে ফিরে পাওয়া: ২৫ সেপ্টেম্বর হারিয়ে যাওয়ার ৭০ বছর পর একমাত্র ছেলে কুদ্দুস মিয়া ওরফে কুদ্দস মুন্সীকে ফেসবুকের কল্যানে ফিরে পান জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার শতবর্ষী মা মঙ্গলের নেছা। ২৫ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১১টায় বাঞ্ছারামপুর উপজেলার আশ্রাফাবাত গ্রামে কন্যা ঝর্ণা বেগমের বাড়িতে মা ছেলের এই দেখা হয়। ছেলেকে ফিরে পেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন ১০২ বছর বয়সী মা মঙ্গলের নেছা। ছেলেকে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। কুদ্দুস মুন্সিও এখন ৮০ বছরের বৃদ্ধ। তার ৩ ছেলে ও ৫ মেয়ে রয়েছে। কুদ্দুস মুন্সির গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলার বাড্ডা গ্রামে।

বরপক্ষের হাতে কনের পিতা খুন: গত ৬ অক্টোবর কসবায় বিয়েতে টক দই পরিবেশন করায় বরপক্ষের হামলায় কনের পিতা ইকবাল হোসেন-(৫০) এর মৃত্যু হয়। ইকবাল হোসেন উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়নের গণকমুড়া গ্রামের মৃত আবদুল গফুরের ছেলে।

খুনের মামলা আপোষ না করায় জোড়া খুন: চাচাতো ভাইয়ের খুনের মামলা আপোষ না করায় গত ১৭ ডিসেম্বর রাতে নবীনগর উপজেলার কুড়িঘর গ্রামে প্রতিপক্ষের গুলিতে খুন হন উপজেলার নাটঘর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেমের ছেলে এরশাদুল হক-(৩৫) ও তার সহযোগী বাদল সরকার-(২৫)।এসব আলোচিত ও সমালোচিত ঘটনার মধ্য দিয়ে ২০২১ সাল পার করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসী।

নয়া শতাব্দী/জেআই

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ