মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩, ১৭ মাঘ ১৪৩০

দেশের ক্রিকেটের উন্নয়নে কোকো ছিলেন প্রধান নায়ক: ফখরুল

প্রকাশনার সময়: ২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ১৭:২০

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বাংলাদেশের ক্রিকেটের উন্নয়নে কোকো ছিলেন প্রধান নায়ক। কোকো একজন অসাধারণ ক্রীড়া সংগঠক ছিলেন, যিনি নিজে খেলাধুলা করতেন এবং বিভিন্ন ক্রীড়া সংস্থার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) বনানী কবরস্থানে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ছোট ছেলের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও ফাতেহা পাঠের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ফখরুল বলেন, ‘আজ (২৪ জানুয়ারি) আরাফাত রহমান কোকোর অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হলেও ব্যক্তিগতভাবে রাজনীতিতে জড়িত ছিলেন না। দুর্ভাগ্যবশত, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা তার মৃত্যুর সবচেয়ে বড় কারণ হিসেবে কাজ করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এক-এগারোর ঘটনার পরে কোকোকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল এবং তারপর তাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে বিদেশে নির্বাসনে পাঠানো হয়। রাজনীতিতে কোনো সম্পৃক্ততা না থাকলেও আরাফাত রহমান কোকোর অকাল মৃত্যুর পেছনে রাজনৈতিক প্রতিহিংসাই দায়ী।’

তিনি বলেন, আরাফাত রহমান কোকো ছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের উন্নয়নের প্রধান নায়ক। তিনি ক্রিকেটকে সংগঠিত, প্রতিষ্ঠিত ও এর মান আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যেতে অবদান রেখেছেন। কিন্তু আমরা দেখেছি কীভাবে তাকে করুণ অবস্থায় মৃত্যুবরণ করতে হয়েছে এবং বিদেশে যথাযথ চিকিৎসা না পেয়েই এই পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হয়েছে।

ফখরুল বলেন, সরকারবিরোধী তীব্র আন্দোলনের মধ্যে কোকোর মরদেহ মালয়েশিয়া থেকে দেশে আনা হয়েছিল, যখন তার মা খালেদা জিয়াকে গুলশানে তার কার্যালয়ে বন্দি করে রাখা হয়।

তিনি বলেন, কিন্তু লাখ লাখ মানুষ সেদিন রাজপথে নেমে বায়তুল মোকাররম মসজিদে তার জানাজায় অংশ নেন… জিয়াউর রহমান ও খালেদা জিয়ার রাজনীতিতে দেশের জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস তা প্রমাণ করেছে। জিয়ার পরিবার বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্রের প্রতীক।

তিনি আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুবার্ষিকীতে বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। কোকোকে খালেদা জিয়ার আদরের ছেলে উল্লেখ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, তাকে হারিয়ে তিনি (খালেদা জিয়া) বিধ্বস্ত হয়ে পড়েন। তিনি এখনও গৃহবন্দি ও আমাদের অনেক নেতাকর্মী কারাবন্দি এবং বর্তমান আন্দোলনে এ পর্যন্ত আমাদের ১৫ নেতাকর্মী নিহত হয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘দেশবাসী এখন কঠোর সংগ্রামের মধ্য দিয়ে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ঐক্যবদ্ধ। আমরা বিশ্বাস করি যে আমরা সফল হব ও চলমান আন্দোলনে বিজয়ী হব এবং বর্তমান শাসনের পতন নিশ্চিত করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করব।’

কোকোর অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনগুলো নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। সকাল ৮টায় বনানীতে কোকোর কবর প্রাঙ্গণে কোরআনখানির আয়োজন করা হয়। সকাল ১০টার দিকে ফখরুলসহ কয়েকজন বিএনপি নেতা তার সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। দুপুর ১২টায় নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কোকোর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে বিএনপি।

২০১৫ সালের ২৪ জানুয়ারি কোকো ৪৫ বছর বয়সে মালয়েশিয়ার একটি ভাড়া বাড়িতে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান। ২৭ জানুয়ারি তার মরদেহ দেশে ফিরিয়ে এনে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়।

নয়াশতাব্দী/জেডআই

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ